এ বছর কারা হজে যেতে পারবেন  আর কারা যেতে পারবেন না ! 

0
18
স্টাফ রিপোর্টারঃ হজের বয়সসীমা ৬৫ বছর করায় অনিশ্চয়তায় সাড়ে ১০ হাজার বাংলাদেশি নিবন্ধনকারী। হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) জানিয়েছে, হজযাত্রীদের মধ্যে যাদের জন্ম ১৯৫৭ সালের ১ জুলাইয়ের পরে শুধুমাত্র সেসকল হজযাত্রীরা এবছর হজে যেতে পারবেন। ১৯৫৭ সালের ৩০ জুনের আগে যাদের জন্ম তারা এবছর হজে যেতে পারবেন না।
এবছর কারা হজে যেতে পারবেন না
সৌদি সরকার হজ পালনের বিষয়ে এবার বেশ কিছু শর্ত দিয়েছে। যার মধ্যে অন্যতম হলো বয়স ৬৫ বছরের বেশি হলে এবার মিলবে না হজের সুযোগ। যেহেতু গত দুই বছর হজ পালনের সুযোগ বন্ধ ছিল তাই এরমাঝে বেড়ে গেছে আবেদনকারীর সংখ্যা। অনেকে আবার ৬৩ বছর বয়সে আবেদন করে ইতোমধ্যেই পেরিয়ে গেছেন ৬৫’র কোটা।
এর আগে সোমবার (২৫ এপ্রিল) ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান জানিয়েছিলেন, বয়সের কারণে যারা হজে যেতে পারবেন না, তাদের পরিবারের সদস্যরা পাবেন বদলি হজের সুযোগ।
হাবের সভাপতি শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ৬৫ বছরের অধিক এমন ব্যক্তির সংখ্যা ১০ হাজার ৪৪১ জন। হজের বিমান ভাড়া কমানোর জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে এখনো বিমান ভাড়া নির্ধারণ হয়নি।
সোমবার হজের জন্য বিমান ভাড়া সংক্রান্ত রুদ্ধদ্বার বৈঠক করে মন্ত্রণালয়। তবে নামপ্রকাশ না করার শর্তে একজন সচিব জানান, ভাড়া বাড়ানোর আবেদন করেছে বিমান।
করোনার নিষেধাজ্ঞা শিথিল হওয়ায় দীর্ঘ দুই বছর পর এবার সৌদি আরব ১০ লাখ মুসল্লিকে হজ করার সুযোগ করে দিচ্ছে। সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহবিষয়ক মন্ত্রণালয় জানায়, অংশগ্রহণকারীদের অবশ্যই ৬৫ বছরের কম বয়সী হতে হবে এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের পূর্ণ ডোজ দেওয়া থাকতে হবে।
সৌদির বাইরে থেকে আসা অংশগ্রহণকারীরাও হালনাগাদ করা কোভিড পিসিআর টেস্ট ও অন্যান্য স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর হজে অংশ নিতে পারবেন। সৌদির উদ্দেশে রওনা হওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ সনদ লাগবে।
গত বছর ইসলামের পাঁচটি মূল স্তম্ভের একটি এই পবিত্র হজে মাত্র ৬০ হাজার মানুষকে (যারা সৌদিতে বসবাস করছেন এমন) অংশগ্রহণের অনুমতি দিয়েছিল সৌদি আরব। মহামারির আগে যে সংখ্যা ছিল প্রায় ২৫ লাখ।
এদিকে, চলতি বছর পবিত্র হজের দেশভিত্তিক কোটা প্রকাশ করেছে সৌদি আরব। এতে চতুর্থ সর্বোচ্চ সংখ্যা বাংলাদেশের। এবারে বাংলাদেশ থেকে হজে অংশ নিতে পারবেন ৫৭ হাজার ৫৮৫ মুসল্লি।
গত বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এবার সবচেয়ে বেশি মানুষ হজ করতে যাবেন ইন্দোনেশিয়া থেকে। এরপরই রয়েছে পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশের নাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here