নাসিরনগরে সাজাপ্রাপ্ত প্রতারক র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার – পর্ব-০১

0
154

মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসির নগর থেকেঃ ব্রাহ্মণ্যবাড়ীয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাবেক আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল গাফ্ফারের ছেলে দৈনিক যুগান্তরের নাসিরনগর উপজেলা প্রতিনিধি মনির হোসেনের বড় ভাই এক বছরের সাজাপ্রাপ্ত প্রতারক লিটনের নিজ বাড়িতে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব ।

বিশ্বস্ত সূত্রের মাধ্যমে জানা যায়  ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের পৈরতলা নিবাসী মৃত ইদন মিযার ছেলে সুমন মিয়ার কাছ থেকে পার্টনারশীপে ব্যবসা করার কথা বলে বø্যাক চেকে স্বাক্ষর করে ২১ লক্ষ টাকা নেয় প্রতারক লিটন। পরে সুমনকে ব্যবসায়িক পার্টনার না দিয়ে সমূদয় অর্থ আত্মসাৎ করেন লিটন। নিরুপায় হয়ে ২০১৯ সালের ২১ নভেম্বর সুমন বাদী হয়ে প্রতারক লিটনকে আসামী করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে নিগোসিয়েশন ইন্সট্রুমেন্ট এ্যাক্ট ১৩৮ ধারায় মামলা রুজু করে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে দীর্ঘ শুনানির পর ২০২০ সালের ৩ ডিসেম্বর বিজ্ঞ আদালত প্রতারক লিটনের বিরুদ্ধে ২১ লক্ষ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারি করে। এরপর থেকে প্রতারক লিটন গা ঢাকা দিয়ে থাকে।

গত মঙ্গলবার র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের পরিচালকের নেতৃত্বে ২৫ সদস্যের একটি টিম রাত ১২ ঘটিকার সময় প্রতারক লিটনের বাড়ীতে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। পরে বুধবার প্রতারক লিটন আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে র‌্যাব।

জানা গেছে, প্রতারক লিটন সুমন ছাড়াও গুনিয়াউক ইউনিয়নের চিতনা গ্রামের রবিউল, বুড়িশ্বর ইউনিয়নের সেলিম চৌধুরী, গোকর্ণ ইউনিয়নের সন্তোষ সরকার,বুড়িশ্বর ইউনিয়নের বুড়িশ্বর গ্রামের ও সদর ইউনিয়নের দাঁতমন্ডল গ্রামের আরো বেশ কয়েকজনকে পুলিশে ও প্রাইমারী স্কুলে চাকুরী দেওয়ার নাম করে অনেক টাকা আত্মসাৎ করেছে। এমনকি প্রতারক লিটনের আপন চাচা নাছির মিয়ারও অনেক টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে নাছির মিয়া জানান।

প্রতারক লিটনের সমস্ত অপকর্মের মূলে তার ছোট ভাই যুগান্তরের সাংবাদিক পরিচয়দানকারী মোঃ মনির হোসেন প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে লিটনকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

মামলার বাদী সুমন মিয়া জানান, লিটনের সমস্ত অপকর্মের মূল চালিকা শক্তি তাহার ছোট ভাই যুগান্তরের সাংবাদিক মনির হোসেন। বাদী সুমন আরো জানায় সাংবাদিক মনির যুগান্তর পত্রিকার কার্ড ব্যবহার করে লিটনকে দিয়ে প্রতারনা করিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করে বিনিময়ে মনির প্রতারক লিটনের কাছ থেকে অর্থের ভাগ নেয়। বাদী সুমন বিষয়টি সুবিবেচনা পূর্বক মনিরের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় সুব্যবস্থা গ্রহণ করতে যুগান্তর কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে।

প্রতারক লিটনের বিরুদ্ধে ধাপে ধাপে বেরিয়ে আসতে শুরু হয়েছে। লিটনের সকল অপকর্মে তথ্য তুলে ধরা হবে ধারাবাহিকতা প্রতি পর্বে প্রকাশ করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here