মাধবপুরে এক নিরীহ পরিবার গৃহবন্দী !  থানায় অভিযোগ করেও ফলফসু হয়নি !! 

0
79

মাধবপুর প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের মাধবপুরে একটি নিরীহ পরিবারকে গৃহবন্দী করে রেখেছে একটি প্রভাবশালী মহল ।

জানা যায়, উপজেলার ৪ নং আদাঐর ইউনিয়নের খিলগাঁও গ্রামের একটি নিরীহ পরিবারকে একটি সংঘবদ্ধ চক্রের সহযোগিতায় একটি প্রভাবশালী মহল ২ দিন যাবত গৃহবন্দী করে রেখেছে । ভুক্ত ভোগীরা জানান, থানায় অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি, প্রভাবশালীরা ক্ষমতার জোরে আমাদের ঘর থেকে বের হওয়ার একমাত্র চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে আমাদেরকে গৃহবন্দী করে রেখেছে। যুগ যুগ ধরে আমাদের পুর্বপুরুষেরা যে রাস্তা দিয়ে ঘর থেকে বের হতো সেই রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়ে আমাদের গৃহবন্দী করে রাখছে। ভুক্তভোগী লিপি সরকার জানান, ঘর থেকে বের হতে না পাড়ায় রান্না- বান্নাও বন্ধ, অন্য ঘর থেকে দিচ্ছে কিছু খাবার , ছেলে মেয়েদের কান্নাকাটি আর সহ্য হচ্ছে না, মনে হয় আত্মহত্যা করি, এ গ্রামে গরীবের কোন মুল্য নেই, বিচারও নেই, সবাই ক্ষমতাবানদের সাথে থাকে । ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য শ্রীবাস সরকার জানান , আমাদের বাড়িটি দখল করতে একটি প্রভাবশালী গুষ্টি ও কিছু দুষ্কৃতকারীদের সহযোগিতায় দীর্ঘদিন যাবত দখল করতে পায়তারা করতেছে। গত ১১/২/২২ তারিখে সকাল অনুমান ৭ টার দিকে আমাদের ঘর থেকে বের হওয়ার একমাত্র রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়ে আমাদেরকে গৃহবন্দী করে রাখে। ঘুম থেকে উঠে রাস্তা বন্ধ দেখে বাড়ির পুর্বদিকে খাল পেরিয়ে থানায় গিয়ে অভিযোগ দিলে ওসি সাহেব মনতলা তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মঞ্জরুল কে ঘটনাস্থলে পাটান, ঘটনার সত্যতা পেয়ে অভিযুক্ত নেহেরলালকে থানায় নিয়ে যান । রাতে চেয়ারম্যান, মেম্বার ও গ্রামের মুরুব্বিরা মিলে আপোষ শর্তে নেহেরলালকে থানা থেকে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে উশৃংখল দাঙ্গাবাজরা আপোষ না মানায় ১৬/২/২২ তারিখে আরেক ভুক্তভোগী নন্দলাল সরকার আদালতে ১৪৭ ধারা একটি মামলা দায়ের করেন । আদালত অমান্য করে ১৯/২/২২ তারিখ কিছু লোকের সহযোগিতায় ভোর রাতে রাস্তাটি আবার বন্ধ করে দেয় , সকালে ভুক্তভোগী ঘুম থেকে উঠলে অভিযুক্ত নেহেরলাল সরকার ডাক দিয়ে বলে ১০ হজার টাকা লাগাইলি, আজকে পারলে তুর ওসি বাবকে আনিস। তুর কোন পুলিশ বাপ আজকে আইত না । কিছুক্ষন পরেই আরও ৩/৪ জন লোক নিয়ে ভুক্তভোগীর বাড়ির জায়গা দখল সহ রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে তরিঘড়ি একটি ঘর তুলে ফেলে । ভুক্তভোগী শ্রীবাস সরকার ওসি সাহেবকে ফোন দিলে তদন্ত অফিসারের সাথে কথা বলতে বলেন , তখন তদন্ত অফিসার এসআই মঞ্জরুল কে ফোন দিলে তিনি ওল্টা পাল্টা মন্তব্য করেন। বিষয়টি অবগত হয়ে মাধবপুর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, নৌকার মনোনীত সাবেক ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফারুক পাঠান ও মাধবপুর পৌরঃ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শ্রীদাম দাস গুপ্ত ওসি সাহেবকে ফোন দিয়ে বিষয়টি দেখার অনুরোধ করলেও ওসি সাহেব কোন ব্যবস্তা নেন নি। বর্তমানে নিরীহ পরিবারটি ২ দিন যাবত গৃহবন্দী হয়ে আছে। যে কোন সময় আত্মহত্যা সহ বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, দ্রুত প্রশাসনের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ প্রশাসনর উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করছেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here