সাভারে মারধরের পর গলাটিপে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

0
62

মোঃ শান্ত খাঁন, ঢাকা থেকেঃ ঢাকার সাভারে যৌতুকের দাবিতে মারধরের পর গলাটিপে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বামীকে অভিযুক্ত করে বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) ওই গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে সাভার মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযুক্ত স্বামী মোঃ শাওন ইসলাম (২৩) সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ মৈস্তাপাড়া (গোলাপ গ্রাম) এলাকার মোঃ মালু মিয়ার ছেলে। নিহত জিনিয়া আক্তার জেরিন মানিকগঞ্জ জেলার মানিকগঞ্জ উপজেলার দেরগ্রাম এলাকার মোঃ জামাল উদ্দিনের মেয়ে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় এক বছর আগে অভিযুক্তের সঙ্গে মেয়েকে বিয়ে দেন বাদী। এরপর থেকেই ছেলের চাকরীর জন্যে ১০ লাখ টাকা দাবি করে আসছিলো বিবাদীর পরিবার। ভুক্তভোগী বাবার বাড়িতে ওই টাকা চাইতে অপারগতা জানানোয় তাকে মারধর করতো তার স্বামী। এনিয়ে সালিশ মিমাংসার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয় বাদী। এরপর বাদীর কাছে তার বাড়ির স্থাবর-অস্থাবর সব সম্পত্তি লিখে দেয়ার দাবি জানিয়ে অন্যথায় মেয়েকে তালাক দেয়ার হুমকি দেয় অভিযুক্ত।

‘একপর্যায়ে গত ১৬ মার্চ বাদীকে একটি নম্বর থেকে ফোন করে তার মেয়ে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি বলে জানায় অভিযুক্ত। খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে দেখতে পান তিনি পৌঁছানোর আগেই মেয়ে মারা যাওয়ায় তার সুরতহাল শেষে মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্যে ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পরে সেখানে গিয়ে মেয়ের মরদেহ দেখতে পান বাদী।’

এতে আরও বলা হয়, বাদীর ধারণা ১৬ মার্চ সকাল ১১টার দিকে যৌতুকের দাবিতে মারধরের পর গলাটিপে তার মেয়েকে হত্যা করে থাকতে পারে। ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেই মরদেহ সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ফেলে রাখা হয়। এ ঘটনায় বিবাদীর সঙ্গে তার পরিবারও জড়িত থাকতে পারে। এর যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে সাভার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফজল হক বলেন, ‘ঘটনাটি প্রথমে আত্মহত্যার কথা বলা হয়েছিলো। পরে সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়। গতকাল ভুক্তভোগীর পরিবার হত্যার অভিযোগ করেছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন আসলে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here